“প্রাচীন ঈসায়ী জামাতের মধ্যে কি অনেক বিবাদ ও দ্বন্দ্ব ছিল?”

“প্রাচীন ঈসায়ী জামাতের মধ্যে অনেক বিবাদ ও দ্বন্দ্ব ছিল, তাই কার বাণী বেরিয়ে এসেছে সেটা জানা কঠিন”

ইসলামী ইতিহাসের তুলনায়, প্রথম ঈসায়ী জামাতের মধ্যে অনেক বেশী একতা ও শান্তি ছিল। হযরত মুহাম্মদের মৃত্যুর পর থেকে বিভিন্ন মুসলমান দলের মধ্যে প্রায় অনবরত যুদ্ধ হচ্ছিল। নবীজীর ইন্তেকালের ২৫ বছর পর তাঁর বিধবা বিবি আয়েশার দল হযরত আলীর দলের বিরুদ্ধে বিখ্যাত ‘উটের যুদ্ধ’ চালালো এবং পরাজিত হল। ২৩ হিজরিতে ফিরোজ আবু লুলু নামক একজন পারস্য গোলাম খলিফা ওমর (রা)-কে ছুরিকাঘাত করেছেন। ৩৫ হিজরিতে অনেক অসন্তুষ্ট মুসলমান দল হযরত উসমান (রা)-এর ঘর অবরোধ করে তরবারি দ্বারা তাকে হত্যা করল। ৪০ হিজরিতে অন্য এক মুসলিম দল হযরত আলী (রা)-কে ছুরিকাঘাত করেছিল। ৬১ হিজরিতে উমাইয়া বংশের মুসলমানেরা এবং কুরাইশ বংশের মুসলমানদের মধ্যে যুদ্ধ হয়েছিল এবং ইয়াযিদের নেতৃত্বে নবীজী (স)-র গোষ্ঠী পরাজিত হল। তারপরও অন্যান্য দলের সঙ্গে যুদ্ধ হয়েছিল যেমন মুসায়লিমা যিনি হযরত মুহাম্মদ (স)-এর নবুয়াত গ্রহণ করলেন কিন্তু নিজেকে একজন নবী বলে দাবি করলেন। ১১ হিজরিতে ইয়ামামা যুদ্ধে এই মুসায়লিমার দশ হাজার সৈন্যের বাহিনী নবীজীর দল প্রায় পরাজিত করেছিলেন।

এর তুলনায়, ঈসা মসীহ্‌র প্রথম অনুসারীদের সমাজের প্রথম ২৫০ বছর ধরে কোন যুদ্ধও হয় নি, কোন রাজনীতিও হয় নি, কোন মারামারিও হয় নি। সাহাবীদের যুগে তাদের মধ্যে আবার বড় ধরণের কোন বিবাদও দেখা দেয় নি। তারা একই মূল সুসংবাদের বাণী গ্রহণ করলেন, যেমন ইতিহাস প্রমাণ করে।

কোনো প্রশ্ন বা মন্তব্য থাকলে আমরা শুনতে চাই! নিচের ফর্ম দিয়ে যোগাযোগ করুন:

Enable javascript in your browser if this form does not load.

Leave a Reply

Your email address will not be published.